Breaking News

ছাই – সুমিতা সরকার ঘোষ

#ব্যক্তিগত_কলম
#ছাই
#সুমিতা সরকার ঘোষ

ছোটবেলা থেকেই বাবা মানে একটা নিরাপত্তা, একটা আশ্রয়, একটা আব্দার, দুটাে হাত দিয়ে আগলে রাখা,
বাবা মানে একটা অন্য রকম অনুভব।

সেই বাবাকে বড় হয়ে খুব কমই পেলাম, নেভিতে সার্ভিস করার জন্য বেশীরভাগ সময়ই বিদেশে থাকতেন, জীবন থেকে আস্তে আস্তে কোথাও সম্পর্কের বাঁধন আলগা হতে লাগল।

ক্রমে ক্রমে কোথাও যেন আরও একটু দূরত্ব স্থাপন হলো। বৈবাহিক সূত্রে চলে এলাম শ্বশুর বাড়ি, শাস্ত্র অনুযায়ী এটাই নাকি মেয়েদের আসল বাড়ি, নিজস্ব জায়গা। জন্ম- সম্পর্কের ভিত উপড়ে অনেকটা নিরীহ পাখিকে খাঁচায় এনে বন্দী করা। সংসার সংসার করে আর সময় দেওয়া হলো না বাবাকে।

শেষের দিন এত তাড়াতাড়ি কাছে চলে আসবে বুঝতেই পারিনি। পৃথিবী ছেড়ে না ফেরার দেশে না বলে চলে যাবে বাবা এ যেন স্বপ্নের অতীত। ছোটবেলা থেকেই মনে বদ্ধমূল ধারণা ছিল সবার বাবার বয়স হবে, আমার বাবা বুড়ো হবে না, আমার বাবা কোনোদিন মারা যাবে না, মারা যাওয়ার কথা কখনও মনে পড়লে ওদিকটা আর চিন্তা করতাম না। হঠাৎ করেই বাবার জীবনে #শেষের_সে_দিন_ভয়ংকর চলে এলো।

যে বাবা গরম সহ্য করতে পারতনা, তাকে লাল গনগনে আঁচের মধ্যেই ইচ্ছে করে যেন শুতে পাঠালাম, বাবা যেন ব্যঙ্গ করে বলল, কি রে? তোকে এত যত্ন করে আগলে রাখলাম আর তুই আমাকে এত কষ্টের মধ্যে ঠেলে দিলি? আগুনের লেলিহান শিখা যেন আগুন নয় এক একটা প্রশ্ন চিহ্ন?? আমার দিকে বিদ্রুপ হয়ে এগিয়ে আসছে।
উত্তর কিছুই দিতে পারলাম না, নির্বাক – বাকরুদ্ধ হয়ে চিতার দিকে তাকিয়ে রইলাম।

সামনে শোয়ানো মানুষটা কি করে ৪৫ মিনিটের মধ্যে এক ট্রে ছাই ( দেড় সের) আর কতগুলো লম্বা লম্বা সাদা হাড়ের সমন্বয় হয়ে গেল বুঝতেই পারলাম না। কতবার আমি আর আমার মেয়ে চিৎকার করে ডাকলাম বাবা দেখ আমরা এসেছি, একবার তো কথা বলো? হাজার ডাক সত্বেও বাবা উঠে এলো না। কেন?? একবার তো বাবা আমার কথার উত্তর দিয়ে যেতে পারত।
না দিলো না।

ইচ্ছে করছিল দুধের মত সাদা ঐ হাড়কটা গঙ্গার জলে ধুয়ে এনে আমার কাছে রেখে দিই, তাও তো কষ্ট হলে ওগুলোর দিকে তাকিয়ে ভাবব #বাবা_আমার_কাছেই_আছে।

নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল আমার বাবা আমার কাছ থেকে, এখনও চোখ বন্ধ করলে প্রতিটা মূহুর্তে, প্রতিটা ক্ষনে বাবাকে ছবির মত দেখতে পাই। ছাইয়ের দিকে নিষ্পলক চোখে তাকিয়ে রইলাম কি করে একটা গোটা দেহ মূহুর্তে ছাইয়ে পরিনত হয়। ছাইয়ের প্রতিটা কনা যেন এক একটা বিস্ময়। আজ আর পৃথিবীর কোনো কোণাতে টর্চ দিয়ে খুঁজলেও বাবাকে পাওয়া যাবে না, কেমন অদ্ভুত ব্যাপার?? যে মানুষটা কয়েক দিন আগেও আমার সামনে ছিল , আজ আর কোথাও নেই। শেষ মূহুর্তে কিছু বলতে চেয়েছিল বাবা, দূর্ভাগ্যবশতঃ শোনা হয়নি আমার।

চলে গেল আমার #বাপি, ছোটবেলা থেকেই ঐ নামে ডাকতাম বাবাকে।
#সুদর্শন_বাপি আজ শুধু #ছাই

#আজ_শুধু_আমার_বাপি_নেই

কোথায় গেলে? বাপি? সারা দুনিয়া তন্ন তন্ন করে শুধু তোমায় খুঁজি। বিষাক্ত পৃথিবীতে শ্বাস বন্ধ হয়ে আসছে আমার,
আজ যে বড্ড একা, #১০/১২ ফুটে একাকীত্বই আমার সঙ্গী,

#থেমে_গেছে_আজ_কলম_শুধুই_রক্তক্ষরণ………

আমার #বন্ধু
আমার #ভালবাসা
আমার #সবকিছু
আমার #সত্তা
আমার #প্রাণ
আমার #পৃথিবী

সবকিছুর সমন্বয়ে আমার #বাপি, তাকেই উৎসর্গ করলাম এই লেখা………

Check Also

দৃঢ় – সুমিতাংশু দোয়শী

যত দিন যাচ্ছে আমার বিশ্বাস তত দৃঢ় হচ্ছে। আজকে আমি যাচ্ছি রহড়া রামকৃষ্ণ মিশন। কেন …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।