Breaking News

গোঁফ চশমা – রাজীব চৌধুরী

গোঁফ চশমা
– রাজীব চৌধুরীগোঁফ চশমা দেখেছ?
ছোটবেলা দেখেছিলুম- গোল চশমার সাথে বিশাল নাকের নিচে ইয়া বড় গোঁফ। আমার ছোটচা কে বললুম- আমাকে কিনে দেবে? সে বলেছিল টাকা নেই।
আমি ছোটচার দিকে তাকিয়ে কাঁদতে পারিনি। ওর চোখে আমি সেদিন লজ্জা দেখেছিলাম। আমার বছর দশেক বয়সে প্রথম লজ্জা দেখা কম কথা?
বিজয়মেলা চলতো টানা একমাস। সেদবার আমি শেষদিকে অনেক আবদার করে অনেক কান্নাকাটিকরে ছোটচা কে নিয়ে গেলুম মেলায়। ওখানে গোঁফ চশমা দেখে আমার খুব ইচ্ছে করল – কিনব। একলাফে বড় হয়ে যাবো।
তারপর বাকি ছিলোনা বিজয় মেলা। সবে মাত্র চারদিন। আমার হাতে চারদিন সময় ছিলো। আমি ছিলাম অনেক ছোট। মেলা চিনতাম না। হেটে যেতে হত স্টেডিয়াম। স্টেডিয়াম অনেক দূরে। অনেকবার রাস্তা পেরোতে হত। রাস্তা পেরোলেই অনেক দোকান। সেখানে রাস্তার ওপর গোঁফ অলা মামা এই চশমা বেচতো। দাম ছিলো পাঁচ টাকা।
পাঁচ টাকা অনেক টাকা।
আমার কাছে দুটো পচিশ পয়সা ছিলো। একটা দিয়েছিল ছোটমামা। আরেকটা কে দিয়েছিল জানা নেই। তারপর …
আমার বউফুলের বাক্সো খুলে বেরিয়ে এসেছিল পুরো দু টাকা। বউফুলের বাক্সোতে আমি লুকিয়ে রাখতাম অনেক কিছু…
কিন্তু আরো দেড় টাকা লাগবে…
আমি কই পাব?
মাকে বলবো?
মা তখন একটা ডিমসেদ্ধ চারটুকরো করতে ব্যস্ত ছিল। একপোয়া তেলে তিনদিন চলতো। নাকি মা চালাতো? আমি এর পরেও বহুদিন ডিম খেতে পাইনি …
তারপর?
তারপর হাতে ছিলো দুদিন। আমার বউফুলের বাক্সোতে যে পুতুলগুলো ছিলো সব বেঁচে দিলাম জিতুর কাছে। জিতু ছিলো আমার খেলার সাথী। ওদের অনেক টাকা ছিলো। ওরা প্রতিদিন মাছ খেতো- মাংস খেতো। আমি ওদের ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে দেখতাম। আহ কি সুন্দর মাংস…লাল লাল তরকারী- সাদা সাদা মাংস। মাংস খাওয়ার সময় জিতুর মাকে কুকুরের মত ঠেকতো। কুকুরের মত হামলে পড়ে খেতো। থালার ওপর মাংসের ঠ্যাং নিয়ে চিবিয়ে চিবিয়ে মুখের দুপাশে ঝোল লাগিয়ে খেতো। তারপর থালা চাটতো। তারপর হাত চাটতো। তারপর বলতো-“ভগবান অনেক খাইয়েছে…”।
আমার পুতুলগুলো আমি বেঁচে দিলাম। তারপর আমার খুব কিনতে ইচ্ছে করল সেই চশমা। কিন্তু জিতু আমাকে এক টাকা দেয়নি। ও আমাকে ঠকিয়েছিলো। আমার মুখোশ কেনা হলোনা। মেলা শেষ হল। শীত এলো-ঠকঠকিয়ে কাঁপিয়ে চলে ও গেল। আমার মনে থেকে গেল সেই গোঁফ চশমার কথা। সেই গোল চশমা আমি কিনে ঝুলিয়ে রেখেছি আমার দেয়ালে… আমি এখন প্রতিদিন একটা করে গোফচশমা কিনতে পারি। কিন্তু কিনিনা। আমি এখন প্রতিদিন ডিম খাই…প্রায় প্রতিদিন মাংস ফ্রাই-চিকেন ডিলেমা আমাকে ছোটবেলার স্বাদ ভুলিয়ে দেয়…আর জিতু… ও তো কবেই বিয়ে করে সংসারী… ওর জামাইয়ের মুখে ঠোটের উপর একটা গোঁফ আছে শুনেছি…ঠিক সেই গোঁফ চশমার মতোন…

Check Also

গল্প – প্রাপ্তিযোগ কলমে – শ্রীকন্যা সেনগুপ্ত

গল্প – প্রাপ্তিযোগ কলমে – শ্রীকন্যা সেনগুপ্ত চাইলেই কি কারো দেখা পাওয়া যায়? আরে না …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।